মুহূর্তেই যমুনায় বিলীন শতাধিক বাড়িঘর

প্রকাশিত: 4:07 PM, July 25, 2020
সংগৃহীত

ধলাই ডেস্ক: যমুনার ভাঙনে মুহূর্তেই বিলীন হয়ে গেছে শতাধিক বাড়িঘর। ভাঙন হুমকিতে রয়েছে আশপাশের কয়েকটি গ্রাম। শুক্রবার দুপুর থেকে সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউপির পাঁচঠাকুরী এলাকায় এ ভাঙন শুরু হয়। মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানেই শতাধিক ঘরবাড়ি নদীগর্ভে চলে গেছে।

ছোনগাছা ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল আলম বলেন, দুপুর থেকে হঠাৎ ভাঙন শুরু হয়। এ রকম নদী ভাঙন আগে কখনো দেখিনি। মুহূর্তেই শতাধিক বাড়িঘর, মসজিদ নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙন কবলিত বাড়িঘরের মানুষগুলো জীবন বাঁচাতে সবকিছু রেখেই চলে আসেন নিরাপদ আশ্রয়ে। নদী ভাঙনের কারণে অনেকে গৃহহীন ও নিঃস্ব হয়ে গেল।

সদরের ইউএনও সরকার অসীম বলেন, বন্যাকবলিত এলাকাগুলো পরিদর্শন করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের আপাতত বিভিন্ন স্কুল-মাদরাসায় রাখা হচ্ছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের সার্বিক সহযোগিতা করা হবে।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম বলেন, সিমলা স্পারের স্যাংক বাঁধটি ভেঙে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর যমুনার স্রোত ঘুরে সরাসরি বাঁধে আঘাত হানে। এ কারণে ভাঙন শুরু হয়েছে। ভাঙন ঠেকাতে জরুরি ভিত্তিতে জিওব্যাগ ডাম্পিংয়ের কাজ শুরু করা হবে।

১ জুন সিমলা-পাঁচঠাকুরী স্পারের স্যাংক বাঁধটি প্রায় ৭০ মিটার নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। বালুর বস্তা ফেলে আপাতত সংস্কার করা হলেও তিন সপ্তাহের মাথায় স্পারের মূল স্যাংকসহ অধিকাংশ এলাকা নদীগর্ভে চলে গেছে। মূল স্পার থেকে বিচ্ছিন্ন হয় স্যাংক বাঁধটি। এরপর থেকেই এলাকায় ভাঙন আতঙ্ক দেখা দেয়।