‘চুরির স্বর্ণালঙ্কার’ কম দামে কেনেন এ ব্যবসায়ী!

প্রকাশিত: 7:02 PM, November 13, 2019

ধলাই ডেস্ক: সিলেট নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টার থেকে শ্রাবনী কান্তম শিপা ও সানোয়ার হোসেন দম্পতির হ্যান্ডব্যাগ চুরি হয়। ব্যাগের মধ্যে থাকা মোবাইল, চাবিসহ অন্যান্য মালামাল একে একে উদ্ধারের পর স্বর্ণের লকেটটিও উদ্ধার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে নগরীর আম্বরখানার নিউ ছামিয়া জুয়েলার্স থেকে লকেটসহ স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়। আটক ব্যবসায়ী মো. আব্দুল মানিক জেলার জালালাবাদ থানার কান্দিগাও ইউপির অনন্তপুরের আব্দুল কাদিরের ছেলে। তিনি ওই জুয়েলার্সের মালিক।

বুধবার বিকেলে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার জেদান আল মুসা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ২৭ অক্টোবর সানোয়ার হোসেন ও শ্রাবনী কান্তম শিপা দম্পতি নগরীর পাঠানটুলার সানরাইজ কমিউনিটি সেন্টারে বিয়েতে যান। ওই দিন শিপার হ্যান্ডব্যাগটি চুরি হয়। এ ঘটনায় সানোয়ার বাদী হয়ে এসএমপির জালালাবাদ থানায় অভিযোগ করেন।

পরে পুলিশ ট্রাকিংয়ের মাধ্যমে প্রথমে হারিয়ে যাওয়া মোবাইল ফোনটি নগরীর হাওয়াপাড়ার যুবক জুয়েলের কাছ থেকে উদ্ধার করে।

তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার রাতে গোয়েন্দা পুলিশ মিরবক্সটুলায় অভিযান চালিয়ে আজাদী ১৮ নং এর মুসলিম মিয়ার স্ত্রী সালেহা খাতুনকে আটক করে। এ সময় তার কাছ থেকে চুরি যাওয়া হ্যান্ডব্যাগ, পাঁচ হাজার টাকা, জাতীয় পরিচয়পত্র, বাসার আলমারি-লকারের দুটি চাবি, লাগেজের দুটি চাবি উদ্ধার করে।

এরপর তার দেয়া তথ্যে অভিযানে নামে পুলিশ। অভিযানে মঙ্গলবার রাতে নগরীর আম্বরখানার নিউ ছামিয়া জুয়েলার্সের মালিক আব্দুল মানিককে আটক করে। এ সময় তার কাছ থেকে চুরি হওয়া স্বর্ণের লকেটটি উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরো জানান, আটক ব্যবসায়ী চোর চক্রের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত। মহানগরসহ আশপাশ এলাকার চুরি-ছিনতাই হওয়া অলংকার ও মালামাল ওই ব্যবসায়ী কম দামে কেনেন। এ ঘটনায় জালালাবাদ থানার এসআই সৌমেন দাস বাদী হয়ে মানিকের বিরুদ্ধে মামলা করেন। বুধবার আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।