জমে উঠেছে নৌকা বিক্রির হাট

প্রকাশিত: 4:05 PM, June 22, 2020

ধলাই ডেস্ক: সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলে বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকে তৈরি নৌকা কেনা-বেচা করাকে কেন্দ্র করে নৌকা বিক্রির হাট জমে উঠে ভাটির জনপদ কাউকান্দি বাজার। এখানে অনেকেই আবার পুরোনো নৌকা বিক্রি করে নতুন বিভিন্ন আকৃতির তৈরি নৌকা কিনে নিয়ে যায়।

জেলার জামালগঞ্জ, বিশ্বম্ভপুর, ধর্মপাশা, মধ্যনগর থানা ও তাহিরপুর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের হাওর পাড়ের বাসিন্দারা বর্ষায় নৌকার চাহিদা মিটিয়ে থাকে। ফলে নৌকার বেচাকেনার হাট বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকে জমে উঠেছে।

নৌকা বেচা-কেনার  এ হাটটি জেলার তাহিরপুর উপজেলার দক্ষিণ বড়দল ইউপি কাউকান্দি বাজারে। বর্ষার শুরুতেই সপ্তাহে দু’দিন শনি ও মঙ্গলবার বসে নৌকার হাট।

উপজেলার সাতটি ইউপির ২৪৯টি গ্রামের লোকজন বর্ষা মৌসুমে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাতায়াতের জন্য নৌকার ওপর নির্ভর করতে হয়। তাই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হাওর জনপদে নৌকার ব্যবহার সবচেয়ে বেশি। তাই বর্ষা মৌসুমে অনেকে এ পেশাকে কাজে লাগিয়ে নৌকা তৈরি করে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে। নাগরিক জীবনে এ কারণে কদর বেড়ে যায় কাঠের তৈরি এ যানটির।

এছাড়াও বিভিন্ন গ্রামের লোকজন হাটবাজার, স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও উপজেলা সদরে আসা-যাওয়ার জন্য আবার অনেকে উন্মুক্ত জলাশয়ে মাছ ধরে জীবন-জীবিকা নির্বাহের জন্য নৌকা কেনেন। এ কারণে তাহিরপুরে বর্ষা মৌসুম এলেই গ্রামগঞ্জে নৌকা কেনাবেচার হিড়িক পড়ে যায়। আর এ বিপুল পরিমাণ নৌকার চাহিদা থেকে উপজেলার কাউকান্দি বাজারে দীর্ঘদিন ধরে জমে উঠেছে নৌকার হাট। বর্ষার শুরুতেই সপ্তাহে দু’দিন শনি ও মঙ্গলবার বসে নৌকার হাট। প্রতি বছর ইউএনও কার্যালয় থেকে ইজারা চুক্তির মাধ্যমে আনা হয় এ বাজারটি। এতে করে প্রতি বছর সরকারের আয়ের উৎস হিসেবেও পরিণত হয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, হাওর বেষ্টিত এ উপজেলায় বর্ষা মৌসুমে ঘর থেকে বের হলেই প্রয়োজন হয় নৌকার। তাই স্থানীয় নৌকা তৈরির কারিগররা নৌকা তৈরি করে বিক্রি করায় নৌকা বিক্রির জন্য গত এক যুগ ধরে পরিচিত পেয়েছে কাউকান্দি বাজারটি।

এখানে অনেকই পুরোনো নৌকা বিক্রি নৌকা বিক্রেতা আশরাফুল মিয়া বলেন, হাওর বেষ্টিত উপজেলার অন্যতম নৌকা কেনা-বেচা করার কেন্দ্র কাউকান্দি বাজার। বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকে নৌকার বাজার জমে উঠে। আমি প্রতি বছর এ বাজারে সপ্তাহে দু-দিন নৌকা বিক্রি করে সংসার খরচ চালাই।  নৌকা বিক্রি করে লাভ ভালোই হয়।

নৌকা ক্রেতা আমিরুল ইসলাম বলেন, নৌকা বিক্রির হাট হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছে কাউকান্দি বাজারটি। এখানে পছন্দ মতো নৌকা কিনেছি আর দাম মোটামুটি ভালোই।

ইজারাদার বাচ্ছু মিয়া বলেন, আমি দুই বছর ধরে এই নৌকা বাজারটি ইজারা চুক্তির মাধ্যমে ইজারাদারের দায়িত্ব গ্রহণ করে আসছি। আমার পক্ষ থেকে নৌকা ক্রেতা বিক্রেতাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করার পাশা পাশি সরকার নির্ধারিত টোল আদায় করি।