বাঁশের বেড়া ভেঙে প্রবাসীর স্ত্রী-সন্তানকে মুক্ত করলেন ইউএনও

প্রকাশিত: 9:04 PM, May 9, 2020
ছবি সংগৃহীত

ধলাই ডেস্ক: সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে প্রতিবেশীর অমানবিক আচরণের কারণে দীর্ঘ এক মাস গৃহবন্দি থাকার সংবাদ প্রকাশের পর ইউএনও বিজেন ব্যানার্জির হস্তক্ষেপে মুক্ত হয়েছেন প্রবাসীর স্ত্রী মাফিয়া বেগম ও তার সন্তান।

মাফিয়া বেগম উপজেলা সদর ইউপির মধ্য তাহিরপুর গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী মতিউর রহমানের স্ত্রী।

শনিবার দুপুরে ইউএনও তাহিরপুর উপজেলা প্রেসক্লাবে সভাপতি আমিনুল ইসলাম, সহ-সভাপতি বাবরুল হাসান বাবলু, স্থানীয় মেম্বার মতিউর রহমান মতিসহ স্থানীয়দের  উপস্থিতিতে চলাচলের পথে দেয়া বাঁশের বেড়া তুলে দেন এবং প্রতিবেশী জিয়াউর রহমানকে সর্তক করেন।

জানা যায়, উপজেলা সদরের মধ্য তাহিরপুর গ্রামে একটি দোচালা টিনের ছাউনি দেয়া ঘরে বাস করেন গৃহবধূ মাফিয়া বেগম। স্বামী মতিউর রহমান দীর্ঘ ৩ বছর ধরে মালেশিয়ায় বসবাস করেন। প্রতিবেশী জিয়াউর রহমান মাফিয়া বেগমের চলাচলের রাস্তায় বেড়া দেয়ায় একমাস ধরে গৃহবন্দি হয়ে পড়েন তিনি। প্রয়োজনীয় সদাই তিনি অন্যকে দিয়ে করান।

১২ বছর পূর্বে জায়গাটি তার স্বামী ক্রয় করেন। কেনার পর কখনো চলাফেরা করতে অসুবিধা হয়নি। একমাস পূর্বে প্রতিবেশী জিয়াউর রহমান কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগে তার চলাচলের রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা তৈরি করলে ৭ বছরের একটি পুত্র সন্তান নিয়ে গৃহবন্দি হয়ে পড়েন মাফিয়া বেগম।

জিয়াউর রহমান বলেন, ওই গৃহবধূ সর্বদা ঝগড়ায় লিপ্ত থাকে। তাই তার চলাচলের পথ বন্ধ করে দেয়া হয়।

মাফিয়া বেগম বলেন, দীর্ঘদিন গৃহবন্দি থাকার পর ইউএনওর হস্তক্ষেপে মুক্ত হলাম।

ইউএনও বিজেন ব্যানার্জি জানান, বাঁশের বেড়া তুলে দেয়া হয়েছে। এখন থেকে ওই নারীর চলাচলে আর কোনো বাঁধা থাকবে না।